২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

এগিয়ে থেকেও মোনাকোর কাছে পাত্তাই পেল না পিএসজি

অনলাইন ডেস্ক: প্রত্যাবর্তনের অসাধারণ গল্প লিখে ফরাসি চ্যাম্পিয়ন পিএসজিকে হারিয়ে দিল মোনাকো। প্রথমার্ধে কিলিয়ান এমবাপের জোড়া গোলে এগিয়ে থেকেও মোনাকোর কাছে ৩-২ গোলে হেরে গেল পিএসজি।

দ্বিতীয়ার্ধে যেন পাত্তাই পেলেন না নেইমাররা। চোট কাটিয়ে ম্যাচে ফিরেছিলেন নেইমার ও এমবাপে। আর এই ম্যাচেই তৃতীয় হারের তেতো স্বাদ পেল পিএসজি।

মোনাকোর পক্ষে জোড়া গোল করেন কেভিন ফলান্ড। অন্য গোলটি আসে সেস ফাব্রেগাসের পা থেকে।

শুরু থেকে জমে ওঠা ম্যাচে সফল প্রতি আক্রমণে ২৫তম মিনিটে এগিয়ে যায় সফরকারীরা। মাঝমাঠ থেকে আনহেল দি মারিয়ার বল ধরে এগিয়ে যান এমবাপে। পাহারায় রাখা আকসেল দিসাসিকে এড়িয়ে ডি বক্সে ঢুকে ডান পায়ের বুলেট গতির শটে দূরের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নেন তিনি।

চার মিনিট পর আরেকটি প্রতি আক্রমণ থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ আসে পিএসজির সামনে। মোনাকোর দুই ডিফেন্ডারের বিপরীতি ছিলে ফরাসি চ্যাম্পিয়নদের দুই ফরোয়ার্ড। বাঁ দিক দিয়ে এগোচ্ছিলেন এমবাপে, ডান দিকে জায়গা নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন মোইজে কিন। ঠিক মতো পাস দিতে পারেননি এমবাপে, তার দুর্বল শট ঠেকিয়ে দেন দিসাসি।

৩১তম মিনিটে লেইভিন কুরজাওয়ার ‘উপহার’ কাজে লাগাতে পারেননি ভিলেম জিবেলস। মোনাকোর একটি ক্রস বিপদমুক্ত করতে গিয়ে হেড করে গোলরক্ষক কেইলর নাভাসকে দিতে চেয়েছিলেন পিএসজি ডিফেন্ডার। তার দুর্বল হেড মাঝপথে পেয়ে যান অরক্ষিত জিবেলেস। তার হেড একটুর জন্য লক্ষ্যে থাকেনি।

৩৬তম মিনিটে সফল স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন এমবাপে। ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার রাফিনিয়াকে ইউসুফ ফোফানা ফাউল করলে পেনাল্টি পেয়েছিল পিএসজি।

তিন মিনিট পর বল জালে পাঠান কিন। তবে আক্রমণের শুরুতে তিনি অফসাইডে থাকায় ভিএআরে বাতিল হয়ে যায় গোল। ৪২তম মিনিটে একইভাবে বাতিল হয়ে যায় এমবাপের গোল। আবদু দিয়ালো বল বাড়ানোর সময় অফসাইডে ছিলেন তিনি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে পিএসজিকে চেপে ধরে মোনাকো। বদলি নামেন ফাব্রেগাস ও কাইয়ো হেনরিক। ধার বাড়ে স্বাগতিকদের আক্রমণের।

তৈরি করতে থাকে একের পর এক সুযোগ। ৪৯তম মিনিটে ফলান্ডের শট একটুর জন্য লক্ষ্যে থাকেনি। পরের মিনিটে তার শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান নাভাস।

ফলান্ডকে বেশিক্ষণ ঠেকিয়ে রাখতে পারেনি পিএসজি। জেলসন মার্তিনেসের কাছ থেকে বল পেয়ে ৫২তম মিনিটে জাল খুঁজে নেন জার্মান ফরোয়ার্ড। বেশিকিছু করার ছিল না নাভাসের।

৬০তম মিনিটে দি মারিয়ার জায়গায় মাঠে নামেন নেইমার। এতোক্ষণ রক্ষণে গুটিয়ে থাকা পিএসজি আক্রমণে মনোযোগ দেয় ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে পেয়ে। একই মেজাজে খেলে যায় মোনাকো। ৬৫তম মিনিটে ম্যাচে সমতাও আনে দলটি।

একটি দারুণ ক্রস নিয়ন্ত্রণে নিতে যাওয়া ফাব্রেগাসকে ঠেকাতে লাইন ছেড়ে এগিয়ে আসেন নাভাস। কিন্তু পাননি বলের নাগাল। স্প্যানিশ মিডফিল্ডারের কাছ থেকে বল পেয়ে অনায়াসে ফাঁকা জালে বল পাঠান ফলান্ড।
একের পর এক সুযোগ নষ্ট করা মোনাকো এগিয়ে যায় ৮৪তম মিনিটে, ফাব্রেগাসের সফল স্পট কিকে। ফলান্ডকে দিয়ালো ফাউল করায় পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। ভিএআরে দেখে পিএসজি ডিফেন্ডারকে লাল কার্ড দেখান রেফারি।

১১ ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই রয়েছে পিএসজি। টানা তৃতীয় জয়ে ২০ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে উঠে এসেছে মোনাকো।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on print
Print
ফেসবুক