৪ঠা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের হিমসাগর যাচ্ছে সুইডেনে

জনপত্র ডেস্ক: আমের জন্য বিখ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জকে ‘আমের রাজধানী’ হিসেবেই চেনে মানুষ। আর এই সুস্বাদু আম দেশের সীমানা ছাড়িয়ে এবার বিদেশেও রফতানি হচ্ছে।

শুক্রবার দুই মেট্রিক টন হিমসাগর আম রফতানির জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। শনিবার (১৯ জুন) বিমানযোগে আমের এ চালান যাবে সুইডেনে।

ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক আহসান হাবিব এ আম রফতানি করছেন। এর আগে চলতি মৌসুমে গত ৫ জুন প্রথম আড়াই মেট্রিক টন হিমসাগর আম রফতানি করেন তিনি।

শুক্রবার (১৮ জুন) দুপুরে সরেজমিন শিবগঞ্জ উপজেলার কালুপুর গ্রামের আহসান হাবিবের আমবাগানে গিয়ে দেখা যায়, বিদেশে রফতানির জন্য দুই মেট্রিক টন আম প্রস্তুত করা হচ্ছে। বৃষ্টির মধ্যেই মোট ২০ জাতের আম বিদেশে পাঠানোর জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে সেখানে।

জানতে চাইলে আহসান হাবিব বলেন, ‘সাধারণ আমচাষিদের চেয়ে আমাদের আম স্বাদে ও গুণে ভিন্ন। কোনো ক্রেতা একবার আম কিনলে পরের বছর পাঁচগুণ বেশি আম কিনে থাকেন। শুধু তাই নয়, উনি আরও কয়েকগুণ ক্রেতা পাঠিয়ে দেন বাগানে। এর বড় বিশেষত্ব হচ্ছে, পরিপূর্ণ-পরিপক্ক না হলে আম নামাই (গাছ থেকে পাড়ি না) না বা বিক্রি করি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘শতভাগ নিরাপদ, স্বাস্থ্যসম্মত ও ফ্রুট ব্যাগিংকৃত আম কোনো প্রকার আঘাত ছাড়াই বোটাসহ গাছ থেকে নামানো হয়। প্রতিটি আমে নিজস্ব স্টিকার লাগিয়ে পরিবহনে আন্তর্জাতিক মানের প্যাকেট ব্যবহার করা হয়। বাগানে জৈবসার ও জৈব বালাইনাশক ব্যবহার করা হয়, যা স্বাস্থ্যসম্মত।’

রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান ফ্রেশ ফুড ট্রেডিং কোম্পানির প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর আলম জানান, তারা তিন বছর ধরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিভিন্ন বাগান থেকে আম সংগ্রহ করে ইউরোপ, কানাডা, সুইডেনসহ বিভিন্ন দেশে পাঠিয়ে থাকেন। সে ক্ষেত্রে তারা পিওর আমগুলোই ক্রয় করেন। এবারও টার্গেট রয়েছে পুরো মৌসুমজুড়ে আম রফতানি করার।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি বিভাগের উপপরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, বিদেশে আম পাঠানোর জন্য কৃষি বিভাগ সার্বিক সহযোগিতা করছে।

তিনি জানান, ফ্রুট ব্যাগিং ব্যবহারের ফলে রফতানিযোগ্য ও সম্পূর্ণ কেমিক্যালমুক্ত আম উৎপাদন সম্ভব হয়েছে। এ পদ্ধতি ব্যবহার করলে আগামীতেও রফতানিতে ব্যাপক সাফল্য পাওয়া যাবে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on print
Print
ফেসবুক