৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেলে দেয়ায় মাথা ফেটে যায়, নাকে কাদা মাটি ঢুকে যাওয়ায় শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছিল

সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ব্রীজ থেকে বেতনা নদীর চরে ফেলে দেওয়া নবজাতক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে।

তবে এবারও মিলল না সন্তানের বাবা মায়ের সন্ধান।

আজ মঙ্গলবার ভোরে স্থানীয় মুসুল্লিদের সহায়তায় কুল্যা ইউপি চেয়ারম্যান ওই নবজাতকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠালে সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় ওই নবজাতক।

কুল্যা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল বাসেত আল হারুন চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার ভোরে ফজরের নামাজ শেষে মুুসুল্লীরা ফেরার সময় শিশুর কান্না শুনে কুল্যা ব্রীজের তলায় বেতনা নদীর চরে যেয়ে ওই নবজাতককে দেখতে পান।

তখন তারা আমাকে সংবাদ দিলে আমি ওই কন্যা নবজাতক উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে তাকে বাঁচানো যায়নি।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা: অসীম কুমার সরকার জানান, নবজাতকটি কন্যা সন্তান। তার অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন ছিল।

উপর থেকে ফেলে দেয়ায় তার মাথা ফেটে যায়। নাকে কাদা মাটি ঢুকে যাওয়ায় শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছিল।

আমরা নবজাতকের নিবিড় চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছিলাম। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এ অবস্থা থেকে শিশুটির প্রাণ রক্ষা করা যায়নি।

আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ গোলাম কবির জানান, শিশুটি দুপুর ২টার দিকে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে।

ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। যারা এই নবজাতককে হত্যা করলো তাদের খুঁজে বের করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on print
Print
ফেসবুক